ঈদযাত্রায় ট্রেনের দ্বিতীয় দিনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শেষ

আজ বৃহস্পতিবার (২৩ মে)। চট্টগ্রাম রেল স্টেশন শেষ হলো ঈদযাত্রার ট্রেনের দ্বিতীয় দিনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি। আসন্ন ঈদ উপলক্ষে ঘরেফেরা মানুষরা দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন প্রত্যাশীত টিকেটের জন্য। দ্বিতীয় দিনের টিকেট এবং নয়টি আন্তঃনগর ও দুটি স্পেশাল ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি হয়েছে ১০টি কাউন্টারে।

রেলওয়ের সূত্র অনুযায়ী জানা যায়, আজ ২৩ মে বিক্রি হয়েছে ১ জুনের টিকিট, ২৪ মে  বিক্রি হবে ২ জুনের টিকেট, ২৫ মে বিক্রি হবে ৩ জুনের টিকিট এবং ২৬ মে বিক্রি হবে ৪ জুনের টিকিট। একইভাবে আগামী ২৯ মে থেকে ঈদ পরবর্তী ফিরতি টিকিট বিক্রি শুরু হবে। ২৯ মে বিক্রি হবে ৭ জুনের টিকিট, একইভাবে ৩০ মে ১ জুন, ৩১ মে ২ জুন ও এভাবে যথাক্রমে ৮, ৯, ১০ ও ১১ জুনের টিকিট বিক্রি করা হবে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকাল ৪টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, টিকেট প্রত্যাশীরা সবাই টিকেট নিয়ে খুশি মনে বাসায় ফিরছেন। টিকেট প্রত্যাশীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এ টিকেট নেওয়ার জন্য অনেকে সেহেরি থেকে আবার অনেকে মধ্যরাত থেকেই এখানে অবস্থান নেন। তারা আরো বলছেন, অ্যাপে পর্যাপ্ত টিকিট না পাওয়ায় স্টেশনে এসে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকেট নিতে হচ্ছে।

টিকেট পেয়ে আনন্দিত দুই বন্ধু মো. আরিফ ও মো. হাসানের সাথে কথা হলে তারা বলেন, সেহেরি খেয়ে নামাজ পরেই টিকেট নিতে লাইনে দাঁড়িয়েছি। অবশেষে টিকেট নিতে পেরে অনেকটা স্বস্তি পাচ্ছি। 

টিকেট কাউন্টারে দায়িত্বরতদের সাথে কথা হলে তারা বলেন, আমরা যতটুকু সম্ভব টিকেট প্রত্যাশীদেরকে টিকেট দেওয়ার চেষ্টা করছি। তারা তো অনেক ধৈর্য্য ধরেই অনেকটা সময় নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়েছে। তাই আমরাও চাই না তারা খালি হাতে বাসায় ফিরুক। কেননা, তাদের প্রত্যাশীত টিকেট মিস হলেই মাটি হয়ে যাবে পরিবারের সাথে কাটানো ঈদের আনন্দ। 

দ্বিতীয় দিনের টিকেট বিক্রির কথা উল্লেখ করে স্টেশন ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ বলেন, আজ সকাল নয়টা থেকে দ্বিতীয় দিনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়ে চলে বিকেল চারটা পর্যন্ত। গতকাল প্রথম দিনে ৬ হাজার টিকেট বিক্রি হয়েছে। প্রথম দিনের তুলনায় আজ টিকেট প্রত্যাশীদের ভিড় অনেক কম ছিল।

সার্ভারের সমস্যার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, গতকাল সার্ভার বিভ্রাটের যে সমস্যা হয়েছিল। তা আজ কোনো রকম সমস্যা দেখা দেয়নি। ফলে খুব দ্রুত টিকেট কনর্ফাম করতে সুবিধা হয়েছে।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *